জাতীয় শিক্ষা

শনিবার | ২২ জুলাই, ২০১৭ | ৭ শ্রাবণ, ১৪২৪ | ২৭ শাওয়াল, ১৪৩৮

প্রচ্ছদ » শিক্ষা » জাতীয় শিক্ষা » সরকারি প্রাথমিক বিদ্যালয়ে নারী শিক্ষক হতে হলে এইচ এস সি পাস হতে হবে

সরকারি প্রাথমিক বিদ্যালয়ে নারী শিক্ষক হতে হলে এইচ এস সি পাস হতে হবে

সরকারি প্রাথমিক বিদ্যালয়ে নারী শিক্ষক হতে হলে এইচ এস সি পাস হতে হবে

সরকারি প্রাথমিক বিদ্যালয়ে সহকারী শিক্ষক পদে নিয়োগে নারী প্রার্থিদের শিক্ষাগত যোগ্যতা বাড়িয়ে এখন থেকে এইচ এস সি করা হয়েছে।

এখন থেকে সরকারি প্রাথমিক বিদ্যালয়ে পরবর্তি সহকারী শিক্ষক নিয়োগ বিজ্ঞতি থেকেই কমপক্ষে উচ্চ মাধ্যমিক পাস নারীরা শিক্ষক নিয়োগে আবেদন করতে পারবেন।এর আগে মাধ্যমিক পাস নারীরা প্রাথমিক বিদ্যালয়ে সহকারী শিক্ষক পদে নিয়োগে আবেদন করতে পারতেন। প্রাথমিক ও গণশিক্ষা মন্ত্রনালয়ের মন্ত্রী আফছারুল আমীন সোমবার বিসিসি নিউজ টোয়েন্টিফোর ডটকমকে বলেন, সরকারি প্রাথমিক বিদ্যালয়ে শিক্ষক নিয়োগ বিধিমালা-১৯৯১ সংশোধন করে নারী প্রার্থীদের শিক্ষাগত যোগ্যতা বাড়ানো হয়েছে।তিনি আরো বলেন নিয়োগ বিধিমালা সংশোধনের ফলে সরকারি প্রাথমিক বিদ্যালয়ে এখন থেকে উপজেলাভি্ত্তিক শিক্ষক নিয়োগ দেয়া হবে।সংশোধিত বিধিমালায় সহকারী প্রধান শিক্ষকের পদ বিলুপ্ত করা হয়েছে।

তিনি আরো বলেন, পিছিয়ে পড়া নারীদের প্রাথমিক বিদ্যালয়ে শিক্ষক হিসেবে নিয়োগ দিতে পুরুষ প্রার্থীদের থেকে তাদের শিক্ষাগত যোগ্যতা কম ছিল। এখন নারী শিক্ষার হার পুরুষের সমান। “শিক্ষক নিয়োগে নারীদের শিক্ষাগত যোগ্যতা এস এস সি পাস চাওয়া হলেও বেশিরভাগ স্নাতক পাস নারী প্রার্থীরাই আবেদন করে থাকেন। তাই সব কিছু বিবেচনা করে নারীদের শিক্ষাগত যোগ্যতা এক ধাপ বাড়ানো হয়েছে”।

আফছারুল আমীন বলেন, নারী শিক্ষকরা শিশুদের আদর-স্নেহ ও মায়ের ভালোবাসা দিয়ে লেখাপড়া করাতে পাড়েন এজন্য প্রাথমিক বিদ্যালয়ে সহকারী শিক্ষক নিয়েগে নারীদের জন্য ৬০ শতাংশ কোটা রাখা হয়েছে। জাতীয় শিক্ষানীতি অনুযায়ী প্রাথমিক শিক্ষার স্তর ক্রমান্বয়ে অষ্টম শ্রেনিতে উন্নীত করা হচ্ছে জানিয়ে মন্ত্রী বলেন, প্রাথমিকে শিক্ষার মান আরো উন্নত করা হবে । এজন্য যোগ্য শিক্ষক দরকার।

নারীদের শিক্ষাগত যোগ্যতা এক ধাপ উন্নীত করা হলেও আগের মতোই স্নাতক পাস পুরুষ প্রাথৃীরা সরকারি প্রাথমিক বিদ্যালয়ে সহকারী শিক্ষক পদে আবেদন করতে পারবেন। মন্ত্রণালয়ের কর্মকর্তরা জানান,সরকারি প্রাথমিক বিদ্যালয়ে গত তিনটি শিক্ষক নিয়োগ পরীক্ষায় মাত্র শুন্য দশমিক ৮৩ শতাংশ এস এস সি পাস প্রার্থীরা আবেদন করেন। বাকিদের অনেকেরই শিক্ষাগত যোগ্যতা স্নাতক ও স্নাতকোত্তর পর্যায়ের।

শুধু নারী প্রার্থীদের আবেদনের যোগ্যতা এস এস সি পাস হওয়ায় সব সহকারী শিক্ষকই এস এস সি স্কেলে বেতন পাচ্ছেন। নিয়োগ বিধি সংশোধনের ফলে এখন থেকে প্রাথমিক শিক্ষকদের এইচ এস সি পাসের বেতন স্কেল দেওয়া হবে বলেও জানান তারা। গত মাসে ২২ হাজার ৯২৫ টি এম পি ও ভুক্ত বেসরকারি প্রাথমিক বিদ্যালয়ের জাতীয়করনের ফলে বর্তমানে দেশে সরকারি প্রাথমিক বিদ্যালয়ের সংখ্যা ৬০ হাজার ৫৯৭টি।

প্রধনমন্ত্রীর ঘোষনা অনুযায়ী বেসরকারি প্রাথমিক বিদ্যালয় জাতীয়করনের আগে দেশে ৩৭ হাজার ৬৭২ টি সরকারি প্রাথমিক বিদ্যালয় ছিল। আরো দুই ধাপে ৯১২ টি এমপিওভুক্ত রেজিস্ট্রার্ড এবং নিবন্ধনের জন্য অপেক্ষামান বেসরকারি প্রাথমিক বিদ্যালয় জাতীয় করণ করা হবে।

সরকারি প্রাথমিক বিদ্যালয়ে সহকারী শিক্ষক নিয়োগে নারীদের জন্য ৬০ শতাংশ কোটা রয়েছে। এছাড়া পোষ্য প্রার্থীদের জন্য ২০ শতাংশ এবং বাকী ২০ শতাংশ পুরুষ প্রার্থীদের জন্য নির্ধারিত আছে।

 

বিসিসি নিউজ টুয়েন্টিফোর ডটকম এ প্রকাশিত/প্রচারিত কোনো সংবাদ, তথ্য, ছবি, ভিডিও, অডিও কনটেন্ট কপিরাইট আইনে পূর্বানুমতি ছাড়া ব্যবহার করা যাবে না।


মন্তব্য করুন

আপনার ই-মেইল ঠিকানা প্রকাশ করা হবে না। আবশ্যিক *

*


8 − = 5

আপনি চাইলে এই এইচটিএমএল ট্যাগগুলোও ব্যবহার করতে পারেন: <a href="" title=""> <abbr title=""> <acronym title=""> <b> <blockquote cite=""> <cite> <code> <del datetime=""> <em> <i> <q cite=""> <strike> <strong>