পরিবেশ ও জীববৈচিত্র্য

শনিবার | ২৩ সেপ্টেম্বর, ২০১৭ | ৮ আশ্বিন, ১৪২৪ | ২ মহররম, ১৪৩৯

প্রচ্ছদ » খবর » পরিবেশ ও জীববৈচিত্র্য » সুন্দরবন রক্ষায় ২৪ সেপ্টেম্বর লংমার্চ

সুন্দরবন রক্ষায় ২৪ সেপ্টেম্বর লংমার্চ

সুন্দরবন রক্ষায় ২৪ সেপ্টেম্বর লংমার্চ

প্রাকৃতিক সৌন্দর্যের লীলাভূমি সুন্দরবনের পাশে রামপাল তাপ বিদ্যুৎ প্রকল্প বাতিলের দাবিতে আগামী ২৪ সেপ্টেম্বর লংমার্চের ঘোষণা দিয়েছে সুন্দরবন রক্ষা জাতীয় কমিটি। ঢাকা থেকে সুন্দরবন পর্যন্ত এ লংমার্চের রুট নির্ধারণ করা হয়েছে।

জাতীয় প্রেসক্লাবের সামনে এক মানববন্ধন কর্মসূচি থেকে এ ঘোষণা দেওয়া হয়।মানববন্ধনে উপস্থিত তেল-গ্যাস-খনিজ সম্পদ ও বিদ্যুৎ-বন্দর রক্ষা জাতীয় কমিটির সদস্য সচিব অধ্যাপক আনু মুহাম্মদ বলেন, ‘ভারতের রাষ্ট্রপতি নিজ দেশে এ ধরনের প্রকল্প করতে দেয়নি। সুন্দরবনের সঙ্গে লাখ লাখ লোকের জীবিকা জড়িত। পার্বত্য চট্টগ্রামে এ ধরনের প্রকল্পের খেসারত আজও দিতে হচ্ছে। জীবনের বিনিময়ে এ ধরনের প্রকল্প আমরা চাই না।’

রামপাল তাপ বিদ্যুৎ প্রকল্প বাংলাদেশ থেকে সরিয়ে নিতে ভারতের রাষ্ট্রপতির প্রতি আহ্বান জানান অধ্যাপক আনু মুহাম্মদ।

যারা সুন্দরবনকে ভালোবেসে ভোট দিয়ে সপ্তাশ্চর্যে স্থান করে দিয়েছেন তাদের সুন্দরবন রক্ষায় আবারও এগিয়ে আসতে অনুরোধ করেন তিনি। পাশাপাশি সরকারকে এ প্রকল্পের পরিবেশগত ছাড়পত্র (এনভায়রনমেন্টাল ইম্প্যাক্ট অ্যাসেসমেন্ট -ইআইএ) বাতিল করার আহ্বান জানান।

ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ের অধ্যাপক ড. আসিফ নজরুল বলেন, ‘দেশের মানুষ আশা করেছিল বিরোধী দল সুন্দরবন ধ্বংসকারী এ প্রকল্পের বিরুদ্ধে আন্দোলন করবে। কিন্তু তারা শুধু ক্ষমতায় যেতে ব্যস্ত। উন্নয়নের বিলবোর্ড মানুষের মনে আছে। মানুষের উন্নয়ন করতে হলে মনুষ্যত্ববিরোধী এ প্রকল্প বাতিল করতে হবে।’rampal-long march

কমিটির সদস্য রুহিন হোসেন প্রিন্স বলেন, ‘আইলা-সিডর থেকে সুন্দরবন দক্ষিণাঞ্চলের লাখ লাখ মানুষকে রক্ষা করেছে। আর এই বন ধ্বংসে সরকার ব্যস্ত। রামপালে বিদ্যুৎ কেন্দ্র স্থাপনের নামে সরকারদলীয়রা সংখ্যালঘুদের সম্পত্তি হাতিয়ে নেওয়ার চেষ্টা করছে। পরিবেশ অধিদপ্তর কোনো সমীক্ষা ছাড়াই সরকারের নির্দেশে ভারতকে খুশি করতে ছাড়পত্র দিয়েছে।’

মানববন্ধনে ট্রান্সপারেন্সি ইন্টারন্যাশনাল বাংলাদেশের (টিআইবি) পরিচালক (আউটরিচ অ্যান্ড কমিউনিকেশন) ড. রেজাউনুল আলম বলেন, ‘পরিবেশ অধিদপ্তর বেআইনিভাবে রামপাল বিদ্যুৎ কেন্দ্র নির্মাণে ছাড়পত্র দিয়েছে। সরকারের ইশারায় আমলারা এটি করেছে।’

আইনের শাসন থাকলে রামপালের মতো সুন্দরবন ধ্বংসকারী একটি প্রকল্প সরকার গ্রহণ করতে পারতো না বলে তিনি মন্তব্য করেন।

এছাড়াও সারাদেশে তরুণ, যুবকসহ সকল শ্রেণি-পেশার মানুষকে এ প্রকল্পের বিরুদ্ধে সোচ্চার হওয়ার আহ্বান জানানো হয় মানববন্ধন থেকে। পাশাপাশি এ প্রকল্প বাতিলের দাবিতে তিন দফা দাবি উত্থাপন করেন আন্দোলনকারীরা।

সুন্দরবন রক্ষা জাতীয় কমিটির সভাপতি ডা. আবদুল মতিনের সভাপতিত্বে অন্যদের মধ্যে বক্তব্য রাখেন বাগেরহাট উন্নয়ন কমিটির চেয়ারম্যান ব্যারিস্টার শেখ মো. জাকির হোসেন।

 

বিসিসি নিউজ টুয়েন্টিফোর ডটকম এ প্রকাশিত/প্রচারিত কোনো সংবাদ, তথ্য, ছবি, ভিডিও, অডিও কনটেন্ট কপিরাইট আইনে পূর্বানুমতি ছাড়া ব্যবহার করা যাবে না।


মন্তব্য করুন

আপনার ই-মেইল ঠিকানা প্রকাশ করা হবে না। আবশ্যিক *

*


8 − 4 =

আপনি চাইলে এই এইচটিএমএল ট্যাগগুলোও ব্যবহার করতে পারেন: <a href="" title=""> <abbr title=""> <acronym title=""> <b> <blockquote cite=""> <cite> <code> <del datetime=""> <em> <i> <q cite=""> <strike> <strong>