অর্থ ও বাণিজ্য

বুধবার | ২৬ জুলাই, ২০১৭ | ১১ শ্রাবণ, ১৪২৪ | ২ জিলক্বদ, ১৪৩৮

প্রচ্ছদ » অর্থ ও বাণিজ্য » মোবাইল নেটওয়ার্ক প্রযুক্তি থ্রিজি’র নিলাম

মোবাইল নেটওয়ার্ক প্রযুক্তি থ্রিজি’র নিলাম

মোবাইল নেটওয়ার্ক প্রযুক্তি থ্রিজি’র নিলাম

টেলিটকের পর বেসরকারি মোবাইল সেবাদাতা প্রতিষ্ঠান গ্রামীণফোন, রবি, বাংলালিংক ও এয়ারটেল গ্রাহকদের থ্রিজি সেবা দেওয়ার অনুমতি পেল। এর আগে গত বছরের ১৪ অক্টোবর আনুষ্ঠানিকভাবে এ প্রযুক্তিটি উন্মুক্ত করা হয়। এরপর পরীক্ষামূলকভাবে থ্রিজি সেবা চালু করে টেলিটক।

থ্রিজি’র নিলাম
৮ সেপ্টেম্বর ঢাকায় আনুষ্ঠানিকভাবে থ্রিজি নিলাম অনুষ্ঠিত হয়। বাংলাদেশ টেলিযোগাযোগ নিয়ন্ত্রণ কমিশনের (বিটিআরসি) আয়োজিত এই নিলামে গ্রামীণফোন ১০ মেগাহার্টজ এবং রবি, বাংলালিংক ও এয়ারটেল ৫ মেগাহার্টজ করে স্পেকট্রাম পায়। নিলামে অবশ্য তোলা হয়েছিল ৪০ মেগাহার্টজ স্পেকট্রাম।
লাইসেন্স পাওয়া প্রতিষ্ঠানগুলোকে থ্রিজি নেটওয়ার্ক চালানোর জন্য দরকারি যন্ত্রপাতি আমদানি করতে বিটিআরসি সব ধরনের সহযোগিতা করবে বলে জানা গেছে। বিটিআরসি ইতিমধ্যে সব অপারেটরকে থ্রিজি সেবা ব্যবহারের মূল্য নির্ধারণ করতে বলেছে।

থ্রিজি প্রযুক্তি
এককথায় থ্রিজি প্রযুক্তি হচ্ছে উচ্চগতির মোবাইল ইন্টারনেট সুবিধা দেওয়ার একটি প্রযুক্তি। এর মাধ্যমে মোবাইল ভিডিও কল থেকে শুরু করে মোবাইলে টিভি দেখাসহ নানা সুবিধা পাওয়া যাবে। পাশাপাশি ভিডিও সম্মেলন, টেলিমেডিসিনের কাজ ঠিকঠাক করা যায় এ প্রযুক্তির সহায়তা নিয়ে। এর আকর্ষণীয় সুবিধা হলো, থ্রিজি মোবাইল ফোনের মাধ্যমে কথা বলার পাশাপাশি ব্যবহারকারীরা ভৌগোলিকভাবে যে অবস্থানেই থাকবেন, সেখানেই উচ্চগতির ইন্টারনেট পাবেন। ব্যবহার করা যাবে গ্লোবাল পজিশনিং সিস্টেম (জিপিএস), যার মাধ্যমে নিখুঁত পথনির্দেশনা পাওয়া যাবে। এ মোবাইল নেটওয়ার্কটি তৃতীয় প্রজন্মের টেলিযোগাযোগ নেটওয়ার্ক। বাংলাদেশে এর আগে ব্যবহূত নেটওয়ার্ক ছিল ২.৫জি বা ২.৭৫জি। নেটওয়ার্ক উন্নীত করার মাধ্যমে স্বল্পমূল্যে উচ্চগতির ইন্টারনেট সুবিধা পাওয়া যায়। এ সুবিধার মাধ্যমে বর্তমান মোবাইল ফোন সেবাদাতা প্রতিষ্ঠানগুলো তাদের সংযোগ ব্যবহারকারীদের নিজেদের এবং অন্যের নেটওয়ার্কে কম মূল্যে ভিডিও কলসহ অন্য সুবিধাগুলো দিতে পারবে। এ ছাড়া এক সিমে ও স্থানে দ্রুতগতির ব্রডব্যান্ড সংযোগও দিতে পারবে।using-mobile

লাইসেন্স পাওয়ার পর
নিলামের মাধ্যমে থ্রিজি সেবা দেওয়ার লাইসেন্স পাওয়া চার মোবাইল সেবাদাতা প্রতিষ্ঠান ইতিমধ্যে গ্রাহকদের সেবা প্রদান বিষয়ে নিজেদের পরিকল্পনা জানিয়েছে।

গ্রামীণফোন

আগামী মাসে ঢাকা শহরের বড় অংশ ছাড়াও চট্টগ্রামে থ্রিজি সেবা চালু করবে গ্রামীণফোন লিমিটেড। নারায়ণগঞ্জ ও গাজীপুরে এ সেবা চালু হবে নভেম্বরের মধ্যে এবং ডিসেম্বরের মধ্যেই সাতটি বিভাগীয় শহরে এ সেবা চালু করা হবে। গ্রামীণফোনের প্রধান নির্বাহী কর্মকর্তা বিবেক সুদ বলেন, “থ্রিজি-গ্রামীণফোন” বাংলাদেশের জন্য এক নতুন অধ্যায়ের সূচনা। সবার কাছে দ্রুততম সময়ে ইন্টারনেট পৌঁছে দিয়ে দেশকে এগিয়ে যেতে সাহায্য করাই আমাদের লক্ষ্য।’ গ্রামীণফোনের গ্রাহকদের থ্রিজি সেবা পেতে নতুন সিমকার্ড কেনার প্রয়োজন নেই। বর্তমান সিমেই পাওয়া যাবে থ্রিজি সেবা—জানালেন গ্রামীণফোনের প্রধান যোগাযোগ কর্মকর্তা সৈয়দ তাহমিদ আজিজুর রহমান।

রবি
অক্টোবরের মধ্যে ৩.৫জির মাধ্যমে থ্রিজি সেবা চালুর ঘোষণা দিয়েছে রবি আজিয়াটা লিমিটেড। প্রতিষ্ঠানটির প্রধান নির্বাহী কর্মকর্তা এবং ব্যবস্থাপনা পরিচালক মাইকেল ক্যুনার জানান, অক্টোবরে রবি স্বল্প পরিসরে থ্রিজি সেবা চালু করবে। এ বছরের মধ্যে পর্যায়ক্রমে ৪০ শতাংশ গ্রাহকদের থ্রিজি সেবা প্রদান করা হবে। এ বছর ঢাকা, চট্টগ্রাম, কুমিল্লা ও সিলেটে এ সেবা চালু হওয়ার পাশাপাশি ২০১৪ সালের প্রথম প্রান্তিকের মধ্যে মোট জনসংখ্যার ৩৫ শতাংশ থ্রিজি সুবিধার আওতায় আসবে বলেও জানান তিনি। থ্রিজির জন্য রবি গ্রাহকদের সিম বদলাতে হবে না এবং মাইগ্রেশন করার জন্য কোনো বাড়তি ফিও দিতে হবে না।

বাংলালিংক
বাংলালিংক ডিজিটাল কমিউনিকেশন লিমিটেড খুব শিগগিরই গ্রাহকদের থ্রিজি সেবা চালু করবে। প্রতিষ্ঠানের প্রধান নির্বাহী কর্মকর্তা জিয়াদ সাতারা বলেন, ‘সত্যিকার অর্থেই বাংলাদেশ নতুন এক অধ্যায়ে যুক্ত হলো থ্রিজি প্রযুক্তি চালুর মাধ্যমে। থ্রিজি লাইসেন্স পাওয়ায় আমরা এখন সামনের দিকে এগিয়ে যেতে পারব, যাতে আমাদের সম্মানিত গ্রাহকেরা তৃতীয় প্রজন্মের প্রযুক্তিনির্ভর সেবা পেতে পারে।’

এয়ারটেল
থ্রিজির উন্নত সেবা দিতে ইতিমধ্যে কাজ শুরু করেছে থ্রিজি সেবা দেওয়ার অনুমতিপ্রাপ্ত প্রতিষ্ঠান এয়ারটেল বাংলাদেশ লিমিটেড। আর এ সেবাকে দ্রুততর করতে ইতিমধ্যে প্রতিষ্ঠানটি নেটওয়ার্ক সহযোগী হিসেবে কাজ করতে হুয়াওয়ের সঙ্গে যুক্ত হয়েছে। প্রতিষ্ঠানটির প্রধান নির্বাহী কর্মকর্তা ও ব্যবস্থাপনা পরিচালক ক্রিস টবিট বলেন, বাংলাদেশে টেলিযোগাযোগ খাতের উন্নয়ন এবং বাকি বিশ্বের সবচেয়ে উন্নত টেলিযোগাযোগ বাজারের সমপর্যায়ে প্রতিস্থাপনের ক্ষেত্রে থ্রিজি সেবা এক নতুন অধ্যায়ের সূচনা করবে। এ ছাড়া দেশের অর্থনৈতিক উন্নয়নে থ্রিজি সেবা গুণক প্রভাব ফেলতে সক্ষম হবে এবং দক্ষতা উন্নয়নে সহায়তা করবে।

থ্রিজি প্রযুক্তির বেশি গতি এবং ব্যবহারযোগ্যতার কারণে উন্নতমানের সেবাগুলো মোবাইল ইন্টারনেটভিত্তিক হবে, যা গ্রাহকদের ব্যবহার অভিজ্ঞতা উন্নয়নে একটি গুরুত্বপূর্ণ ভূমিকা পালন করবে বলে আশাবাদী প্রতিষ্ঠানটি। খুব শিগগিরই গ্রাহকদের জন্য থ্রিজি চালুর পাশাপাশি এয়ারটেল ইন্টারনেটভিত্তিক বিনোদনের চাহিদা পূরণের ক্ষেত্রে বেশ কিছু সেবাও চালু করবে।

টেলিটকের সেবা
দেশে প্রথম থ্রিজি সুবিধা চালু করে মোবাইল ফোন সেবাদাতা প্রতিষ্ঠান টেলিটক বাংলাদেশ লিমিটেড। বর্তমানে টেলিটক ঢাকা, চট্টগ্রাম, সিলেটে পূর্ণাঙ্গভাবে থ্রিজি সেবা প্রদান করবে। চলতি মাসেই কক্সবাজারে এ সেবা চালু হবে বলে জানালেন রাষ্ট্রায়ত্ত এ টেলিযোগাযোগ প্রতিষ্ঠানটির ব্যবস্থাপনা পরিচালক মো. মুজিবুর রহমান। তিনি জানান, ‘আমাদের খরচ কিন্তু খুবই কম। প্রাথমিকভাবে শুধু কথা বলার জন্য যে খরচ, তা দিয়েই থ্রিজিতে কথা বলা যাবে। থ্রিজির সব সেবাতেই থাকছে ১০ সেকেন্ড পালস সুবিধা। এ ছাড়া বর্তমানে দেশের মাছরাঙা, দেশ টিভি, ইনডিপেনডেন্ট, আরটিভি ও এটিএন বাংলা দেখা যাবে। খুব শিগগিরই টেলিটক সারা দেশের সব জেলা ও বিভাগীয় শহরে থ্রিজি-সুবিধা চালু করবে।

 

বিসিসি নিউজ টুয়েন্টিফোর ডটকম এ প্রকাশিত/প্রচারিত কোনো সংবাদ, তথ্য, ছবি, ভিডিও, অডিও কনটেন্ট কপিরাইট আইনে পূর্বানুমতি ছাড়া ব্যবহার করা যাবে না।


মন্তব্য করুন

আপনার ই-মেইল ঠিকানা প্রকাশ করা হবে না। আবশ্যিক *

*


7 − 3 =

আপনি চাইলে এই এইচটিএমএল ট্যাগগুলোও ব্যবহার করতে পারেন: <a href="" title=""> <abbr title=""> <acronym title=""> <b> <blockquote cite=""> <cite> <code> <del datetime=""> <em> <i> <q cite=""> <strike> <strong>