পোশাক শিল্প

সোমবার | ২০ নভেম্বর, ২০১৭ | ৬ অগ্রহায়ণ, ১৪২৪ | ২৯ সফর, ১৪৩৯

প্রচ্ছদ » অর্থ ও বাণিজ্য » পোশাক শিল্প » শ্রমিক বিক্ষোভ: আগুন, গুলি, আহত দু’শতাধিক

শ্রমিক বিক্ষোভ: আগুন, গুলি, আহত দু’শতাধিক

শ্রমিক বিক্ষোভ: আগুন, গুলি, আহত দু’শতাধিক

ন্যূনতম মজুরি আট হাজার টাকা ও জিএসপি সুবিধা পুনর্বহালসহ বিভিন্ন দাবিতে রবিবারও গাজীপুরে পোশাক শ্রমিকরা বিক্ষোভ, গাড়ি ও কারখানা ভাঙচুর, মহাসড়ক অবরোধ করেছে। আন্দোলনরত শ্রমিকদের সঙ্গে দফায় দফায় সংঘর্ষ হয় পুলিশের। এ সময় পুলিশ ও পথচারীসহ অন্তত দুই শতাধিক শ্রমিক আহত হয়েছে।

রাত ৭টায় এ প্রতিবেদন লেখা পর্যন্ত বিক্ষোভ চলছিল।

রবিবার সকাল থেকেই বিভিন্ন কারখানার শ্রমিকরা কাজে যোগ না দিয়ে বিক্ষোভ করতে থাকে। বিক্ষুব্ধ শ্রমিকরা জেলার বিভিন্ন এলাকায় সড়ক-মহাসড়ক অবরোধ এবং কারখানা ও যানবাহন ভাঙচুর করে। এসময় তারা বিভিন্ন কারখানা ও গাড়িতে আগুন দেয়। আন্দোলনরত শ্রমিকদের সঙ্গে পুলিশ ও র‌্যাবের দফায় দফায় সংঘর্ষ ও ধাওয়া-পাল্টা ধাওয়ায় গাজীপুরের শিল্প এলাকা রণক্ষেত্রে পরিণত হয়।

পরিস্থিতি নিয়ন্ত্রণে আনতে পুলিশ লাঠিচার্জ, টিয়ার শেল ও গুলি চালায়। শ্রমিক ও আইনশৃঙ্খলা বাহিনীর এ সংঘর্ষে পথচারীসহ অন্তত দুই শতাধিক শ্রমিক আহত হয়।এ ঘটনায় জেলার শতাধিক কারখানা ছুটি ঘোষণা করা হয়েছে।

পুলিশ ও প্রত্যক্ষদর্শীরা জানায়, সন্ধ্যায় বহিরাগত শ্রমিকরা গাজীপুর সদরের মালেকের বাড়ি এলাকার এলিট গার্মেন্টস ও ভোগড়ার স্কয়ার গার্মেন্টসে হামলা চালিয়ে ব্যাপক ভাঙচুর করেছে। এ সময় তারা এলিট গার্মেন্টস কারখানায় রাখা কয়েকটি গাড়ি ভাঙচুর এবং একটি গাড়িতে অগ্নিসংযোগ করে। রাতেও ওই এলাকায় আন্দোলনরত শ্রমিকরা বিক্ষোভ করতে থাকে।

বিকালে গাজীপুর মহানগরের নাওজোর এলাকার দিগন্ত সোয়েটার কারখানা ও আশপাশের কয়েকটি গার্মেন্টসের শ্রমিকরা একই দাবিতে বিক্ষোভ করে। বিক্ষুব্ধ শ্রমিকরা রাস্তায় নেমে এসে সড়ক অবরোধ করে। পরে পুলিশ এসে লাঠিচার্জ করে শ্রমিকদের ছত্রভঙ্গ করে দেয়।

তারা জানায়, সকাল সোয়া ৮টার দিকে কালিয়াকৈর উপজেলা চন্দ্রা পল্লীবিদ্যুৎ এলাকার ইন্টারস্টপ এ্যাপারেলস লিমিটেড পোশাক কারখানার শ্রমিকরা আন্দোলনের সূচনা করে। পরে জেলার বিভিন্ন শিল্প এলাকায় আন্দোলন ছড়িয়ে পড়ে এবং সারাদিন দফায় দফায় আইনশৃঙ্খলা বাহিনী ও শ্রমিকদের মধ্যে সংঘর্ষ হয়।

এ আন্দোলনে যোগ দেয় ডিভাইন টেক্সটাইল লিমিটেড, ইকোটেক্স লিমিটেড, ট্রপিক্যাল নিটেক্স,  আয়মন টেক্সটাইল লিমিটেড, মোতমায়েন হোসিয়ারি লিমিটেড, এপেক্স ফার্মা লিমিটেড, এপেক্স ফুটওয়্যার লিমিটেড, স্টারলিং এ্যাপারেলস লিমিটেড, আরএল ডাইং লিমিটেড, ইউনাইটেড সোয়েটার এবং গোমতী টেক্সটাইল লিমিটেড কারখানার শ্রমিকরা।

কারখানা কর্তৃপক্ষ জানায়, সকালে ২/৩ হাজার বহিরাগত শ্রমিক লাঠিসোটা নিয়ে মিছিলসহকারে কোনাবাড়ি-কাশিমপুর সড়কের পাশে যমুনা ডেনিমস কারখানায় হামলা চালায়। শ্রমিকরা কারখানার পূর্ব পাশের বাউন্ডারির ওয়াল ভেঙ্গে ভেতরে প্রবেশ করে। তারা কারখানা অফিসে ফেব্রিকস গুদামে আগুন ধরিয়ে দিলে বিপুল পরিমাণ কাপড় পুড়ে যায়। এ সময় শ্রমিকরা তান্ডব চালিয়ে নিটিং সেকশন, অপটিমড জিমন্স, স্যাম্পলন সেকশনসহ কারখানায় ভাঙচুর করে এবং ইট-পাটকেল নিক্ষেপ করে।

 

বিসিসি নিউজ টুয়েন্টিফোর ডটকম এ প্রকাশিত/প্রচারিত কোনো সংবাদ, তথ্য, ছবি, ভিডিও, অডিও কনটেন্ট কপিরাইট আইনে পূর্বানুমতি ছাড়া ব্যবহার করা যাবে না।

মন্তব্য করুন