শীর্ষ খবর

শনিবার | ২২ জুলাই, ২০১৭ | ৭ শ্রাবণ, ১৪২৪ | ২৭ শাওয়াল, ১৪৩৮

প্রচ্ছদ » শীর্ষ খবর » মৃত ভেবে গৃহকর্মীকে ডাস্টবিনে নিক্ষেপ, গৃহকর্তী আটক

মৃত ভেবে গৃহকর্মীকে ডাস্টবিনে নিক্ষেপ, গৃহকর্তী আটক

মৃত ভেবে গৃহকর্মীকে ডাস্টবিনে নিক্ষেপ, গৃহকর্তী আটক

গৃহপরিচারিকা ৯ বছরের শিশু আদুরীকে অমানুষিক নির্যাতন করেছে রাজধানীর এক গৃহকর্তী। শুধু তাই নয় নির্যাতন শেষে মৃত ভেবে তাকে ফেলে আসা হয় ডাস্টবিনে। পরে ডাস্টবিন থেকে পুলিশ তাকে উদ্ধার করে হাসপাতালে নিয়ে আসে।

বৃহস্পতিবার বিকালে আদুরীর মা ঢাকা মেডিকেল কলেজ হাসপাতালে তার মেয়েকে শনাক্ত করেন। এ ঘটনায় নির্যাতনকারী দজ্জাল গৃহকর্তীকে গ্রেফতার করেছে পুলিশ।

জানা যায়, পটুয়াখালী জেলার জৈনকাঠির বাসিন্দা মৃত খালেক মৃধার কন্যা আদুরীকে এক মাস আগে একই এলাকার চুন্নু মৃধা রাজধানীর পল্লবীর একটি বাসায় গৃহকর্মী হিসেবে কাজে পাঠায়।

গত সোমবার গৃহকর্তার পরিবারের লোকজন আদুরীকে বেদম মারধর করে। একপর্যায়ে সে জ্ঞান হারিয়ে ফেললে আদুরীকে মৃত ভেবে ক্যান্টনমেন্ট থানাধীন বারিধারা ডিওএইচএস এলাকায় ময়লা-আবর্জনার একটি ডাস্টবিনে ফেলে দেয়া হয়।

ঘটনার পর এলাকার লোকজন থানায় সংবাদ দিলে এসআই মান্নান মুমূর্ষু অবস্থায় আদুরীকে উদ্ধার করে অজ্ঞাত শিশু পরিচয়ে ঢাকা মেডিকেল কলেজ হাসপাতালে ভর্তি করেন। উদ্ধারের সময় শিশু আদুরীর শরীরে আয়রন ও গরম খুন্তির পোড়া দাগ ছাড়াও তার মাথা এবং দেহের বিভিন্নস্থানে মারধরের চিহ্ন ছিল।

আদুরিকে কাজে পাঠানোর পর থেকে তার মা সাফিয়া বেগমের সাথে কোনো যোগাযোগ ছিল না। ঘটনার পর চুন্নু মিয়ার মাধ্যমে সংবাদ পেয়ে গত মঙ্গলবার ঢাকায় আসেন। মেয়ের সন্ধান না পেয়ে সাফিয়া বেগম লোকমারফত খবর পেয়ে বৃহস্পতিবার বিকালে ঢাকা মেডিকেল কলেজ হাসপাতালে গিয়ে আদুরীকে শনাক্ত করেন।

ঘটনার বিস্তারিত জানিয়ে সাফিয়া বেগম সহায়তা চাইলে পল্লবী থানা পুলিশ গৃহকর্তী নদীকে আটক করে।

এ বিষয়ে বৃহস্পতিবার রাতে ঢাকা মহানগর পুলিশ এক বিবৃতিতে জানিয়েছে, গত ২৩ সেপ্টেম্বর বিকাল সাড়ে ৫টার দিকে ক্যান্টনমেন্ট থানার এএসআই আব্দুল মান্নান দায়িত্ব পালনকালে ডিওএইচএস বারিধারার রাস্তার পাশের একটি ডাস্টবিনের কাছ থেকে আদুরী (১১) নামের এক গৃহকর্মীকে অর্ধমৃত অবস্থায় উদ্ধার করে। তিনি তৎক্ষণাৎ তাকে ঢাকা মেডিকেল কলেজে চিকিৎসার ব্যবস্থা করেন। অপুষ্টিতে হাড্ডিসার আদুরীর শরীরের বিভিন্ন স্থানে আগুনের ছেঁকাসহ নানা ধরনের অত্যাচারের ক্ষতচিহ্ন পাওয়া যায়।

বর্তমানে ডিএমপির উইমেন সাপোর্ট এন্ড ইনভেস্টিগেশন বিভাগ আদুরীর দেখাশুনার জন্য সর্বক্ষণ ঢাকা মেডিকেল কলেজে অবস্থান করছে।

বিবৃতিতে আরো জানানো হয়েছে, আদুরী সুলতানা প্যালেস, ২৯/১ সেকশন ১২ সাগুফতা বাড়ি কল্যাণ সমিতি, পল্লবীর ২য় তলায় সাইফুল ইসলাম মাসুদ এবং নওরীন জাহান নদী দম্পতির বাসায় গৃহকর্মী হিসেবে কাজ করছিল।

আদুরী সাইফুলের দুলাভাই চুন্নু মিয়ার মাধ্যমে উক্ত বাসায় আসে। সাইফুল ইসলাম মাসুদ এমএলএম ব্যবসায় জড়িত ছিল এবং এ কারণে সে আগে থেকেই পলাতক আছে। এ ঘটনায় তদন্ত অব্যাহত আছে।

 

বিসিসি নিউজ টুয়েন্টিফোর ডটকম এ প্রকাশিত/প্রচারিত কোনো সংবাদ, তথ্য, ছবি, ভিডিও, অডিও কনটেন্ট কপিরাইট আইনে পূর্বানুমতি ছাড়া ব্যবহার করা যাবে না।


মন্তব্য করুন

আপনার ই-মেইল ঠিকানা প্রকাশ করা হবে না। আবশ্যিক *

*


9 − = 0

আপনি চাইলে এই এইচটিএমএল ট্যাগগুলোও ব্যবহার করতে পারেন: <a href="" title=""> <abbr title=""> <acronym title=""> <b> <blockquote cite=""> <cite> <code> <del datetime=""> <em> <i> <q cite=""> <strike> <strong>