Azizul Bashar
উৎসব

সোমবার | ২০ আগস্ট, ২০১৮ | ৫ ভাদ্র, ১৪২৫ | ৮ জিলহজ্জ, ১৪৩৯

প্রচ্ছদ » খবর » উৎসব » কঠোর নিরাপত্তার চাদরে ঢাকা ফাঁকা রাজধানী

কঠোর নিরাপত্তার চাদরে ঢাকা ফাঁকা রাজধানী

কঠোর নিরাপত্তার চাদরে ঢাকা ফাঁকা রাজধানী

নাড়ীর টানে পাল্লা দিয়ে মানুষ ছটুছে গ্রামে। ফাঁকা হচ্ছে রাজধানী। ফাঁকা রাজধানীতে বাড়ছে বাসা-বাড়িতে চুরি-ডাকাতি ও ছিনতাইসহ আইন শৃঙ্খলার অবনতির আশঙ্কা। ফাঁকা রাজধানীর নিরাপত্তা নিশ্চিত করছে কঠোর নিরাপত্তা বলয়  গড়ে তোলা হয়েছে বলেও ডিএমপি সূত্র জানিয়েছে। তবে পুলিশের নিরাপত্তায় আস্থা রাখতে পারছেনা নগরবাসী।

অভিযোগ রয়েছে, প্রতিবছর ঈদ এলেই সরকারের পক্ষ থেকে স্তরে স্তরে নিরাপত্তার কথা বলা হলেও কোন প্রতিকার পাওয়া যায় না। উল্টো পুলিশের নিরব ভূমিকায় অপরাধের অভয় আশ্রমে পরিনত হয় ঢাকা। বাসা-বাড়িতে চুরি-ডাকাতি তো হয়ই, অনেক সময় খুন খারাবির ঘটনা ঘটে।
মুগদা পাড়ার বাসিন্ধা ফারজানা বেগম জানান, এবার ঈদে বাড়ি যাচ্ছি না। এ এলাকার কোন নিরাপত্তা নেই। সারাবছরই চোরের উৎপাত, আর এখন বাসা ফাঁকা পাইলে আর রক্ষা নেই।

ডিএমপি সূত্র জানান, ঈদ ও পূজাকে কেন্দ্র করে রাজধানীতে দু’ ধাপে কঠোর নিরাপত্তা বলয় গড়ে তোলা হবে। ঈদকালীন ফাঁকা রাজধানীতে কোনভাবেই আইন-শৃঙ্খলা অবনতি হতে পারবে না। চুরি-ডাকাতি রোধে প্রতিটি থানার আওতায় মহল্লায় র‌্যাব-পুলিশের টহল টিম প্রস্তুত রাখা হয়েছে। প্রতিটি থানা এলাকায় ৫ থেকে ৭টি ফুট প্যাট্রল ও সমসংখ্যক মোবাইল টিম কাজ করবে। প্রায় শতাধিক ছিনতাই স্পট চিহ্নিত করে সেসব জায়গায় পুলিশ ও র‌্যাবের টহল অবস্থান নিশ্চিত করা হয়েছে।

এ ছাড়া ঢাকা মহানগর  গোয়েন্দা কার্যালয়, প্রতিটি থানা, র‌্যাবের কার্যালয়ে বিশেষ সেল খোলা হয়েছে। একই সঙ্গে রাজধানীর বিনোদন কেন্দ্রগুলোতে র‌্যাব পুলিশ ও সাদা পোশাকে ডিবি পুলিশের নজরদারির ব্যবস্থা নেয়া হয়েছে।

ডিএমপি সূত্র আরো জানায়,  মোবাইলে ফোনে চাঁদাবাজি, ছিনতাই ও কোরবানির পশুর হাটের র‌্যাব -পুলিশের কঠোর নিরাপত্তা ব্যবস্থা জোরদার করা হয়েছে। চাঁদাবাজি ঠেকাতে ২ টি স্পটে সিসি ক্যামেরা বসানো হয়েছে। জাল টাকা সনাক্ত করতে পর্যাপ্ত মেশিন বসানো হয়েছে। ১ লাখের বেশি টাকা পরিবহণে পুলিশের মানি এস্কট টিম প্রস্তুত রাখা হয়েছে। পরিবহন চাঁদাবাজি ও যাত্রী হয়রানি বন্ধে প্রায় প্রতিটি টার্মিনালে পুলিশি ব্যবস্থা নেয়া হয়েছে। ডিএমপির অনুমদিত স্থান ছাড়া অন্য কোথাও গাড়ি পার্কিংয়ে নিষেধজ্ঞা জারি করা হয়েছে।

ঢাকা মহানগর পুলিশের উপকমিশনার মাসুদুর রহমান  বলেন, রাজধানীর নিরপাত্তা নিশ্চিত করতে কঠোর নিরাপত্তা বলয় নেয়া হয়েছে। পুলিশের সঙ্গে র‌্যাব ও ডিবির মনিটরিং বাড়ানো হয়েছে। কোথাও বিশৃঙ্খলার হলে সাথে সাথে ব্যবস্থা নেয়া হবে।

ডিএমপি কমিশনার বেনজির আহমেদ জানিয়েছেন, রাজধানীসহ সারাদেশে কঠোর নিরাপত্তার ব্যবস্থা নেয়া হয়েছে। ঈদপূর্ববর্তী ও পরবর্তী নিরাপত্তা নিশ্চিত করতে আমাদের ব্যাপক প্রস্তুতি রয়েছে। আশারাখি কোন ধরণের বিশৃঙ্খলা হবে না।

 

বিসিসি নিউজ টুয়েন্টিফোর ডটকম এ প্রকাশিত/প্রচারিত কোনো সংবাদ, তথ্য, ছবি, ভিডিও, অডিও কনটেন্ট কপিরাইট আইনে পূর্বানুমতি ছাড়া ব্যবহার করা যাবে না।


মন্তব্য করুন