শীর্ষ খবর

শনিবার | ১৯ আগস্ট, ২০১৭ | ৪ ভাদ্র, ১৪২৪ | ২৬ জিলক্বদ, ১৪৩৮

প্রচ্ছদ » শীর্ষ খবর » পুলিশ-ছাত্রদল সংঘর্ষ, পুলিশসহ আহত ৩৫

পুলিশ-ছাত্রদল সংঘর্ষ, পুলিশসহ আহত ৩৫

পুলিশ-ছাত্রদল সংঘর্ষ, পুলিশসহ আহত ৩৫

ফেনীর সোনাগাজী উপজেলায় আজ শনিবার বিকেলে পুলিশের সঙ্গে ছাত্রদল ও যুবদলের কর্মী-সমর্থকদের পাল্টাপাল্টি ধাওয়া ও সংঘর্ষের ঘটনা ঘটেছে। এতে পুলিশের সাত সদস্যসহ অন্তত ৩৫ জন আহত হয়। ঘটনায় জড়িত সন্দেহে পাঁচজনকে আটক করেছে পুলিশ।

এদিকে ছাত্রদল ও যুবদলের মিছিলে ‘হামলার প্রতিবাদে’ আগামীকাল রোববার সোনাগাজীতে সকাল-সন্ধ্যা হরতাল ডেকেছে উপজেলা ছাত্রদল ও যুবদল।

উপজেলা বিএনপির সাবেক সাধারণ সম্পাদক ও চর চান্দিয়া ইউনিয়ন পরিষদের চেয়ারম্যান সামছুদ্দিন হরতাল আহ্বানের সত্যতা নিশ্চিত করেছেন।

পুলিশের আহত সদস্যরা হলেন সোনাগাজী মডেল থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা (ওসি) সুভাষ চন্দ্র পাল, পরিদর্শক (ওসি-তদন্ত) আরজুন, উপপরিদর্শক (এসআই) মো. মামুন, কনস্টেবল সামছুল হক, মো. হারুণ, মো. রফিক ও মো. মফিজ। আহত লোকজনকে উপজেলা স্বাস্থ্য কমপ্লেক্স ও স্থানীয় বিভিন্ন ক্লিনিকে পাঠানো হয়েছে।

পুলিশ, প্রত্যক্ষদর্শী ও দলীয় সূত্রে জানা গেছে, বিকেলে সোনাগাজী মোহাম্মদ ছাবের পাইলট স্কুল মাঠে উপজেলা ছাত্রদলের একটি পূর্বনির্ধারিত ছাত্র-গণজমায়েত অনুষ্ঠিত হওয়ার কথা ছিল। এতে প্রধান অতিথি ছিলেন ফেনী-৩ আসনের (সোনাগাজী-দাগনভূঞা) সাংসদ ও বিএনপির চেয়ারপারসনের উপদেষ্টা মোহাম্মদ মোশাররফ হোসেন। সভা শুরুর আগে বিকেল চারটার দিকে উপজেলা সদরের জিরো পয়েন্টে ছাত্রদল ও যুবদলের একটি মিছিল থেকে ককটেল বিস্ফোরণ করা হয়েছে বলে অভিযোগ তুলে পুলিশ মিছিলকারীদের লাঠিপেটা করে। এতে ছাত্রদল ও যুবদলের কর্মী-সমর্থকদের সঙ্গে পুলিশের পাল্টাপাল্টি ধাওয়া শুরু হলে ছাত্রদলের কর্মীরা পুলিশকে লক্ষ্য করে ইটপাটকেল ছোড়েন। একপর্যায়ে জিরো পয়েন্টের পাশে আওয়ামী লীগের অফিস থেকে ছাত্রলীগ ও যুবলীগের নেতা-কর্মীরা এসে ছাত্রদল ও যুবদলের কর্মীদের ধাওয়া করেন। উভয় পক্ষের মধ্যে সংঘর্ষ লেগে যায়। সংঘর্ষের সময় অন্তত ১৫টি ককটেলের বিস্ফোরণ ঘটে। এ সময় পুলিশের সাত সদস্যসহ অন্তত ৩৫ জন আহত হয়। পরিস্থিতি নিয়ন্ত্রণে আনতে পুলিশ বেশ কয়েকটি কাঁদানে গ্যাসের শেল ও শটগানের গুলি ছোড়ে। পরে ফেনী থেকে অতিরিক্ত পুলিশ ও র‌্যাপিড অ্যাকশন ব্যাটালিয়নের (র‌্যাব) সদস্যরা ঘটনাস্থলে গিয়ে পরিস্থিতি নিয়ন্ত্রণে আনেন।

ফেনীর পুলিশ সুপার (এসপি) পরিতোষ ঘোষ ঘটনার সত্যতা নিশ্চিত করে বলেন, পরিস্থিত এখন শান্ত। এ ঘটনায় পুলিশের পক্ষ থেকে মামলা করার প্রস্তুতি চলছে। উপজেলা সদরে পুলিশ ও র‌্যাবের টহল অব্যাহত রয়েছে।

 

বিসিসি নিউজ টুয়েন্টিফোর ডটকম এ প্রকাশিত/প্রচারিত কোনো সংবাদ, তথ্য, ছবি, ভিডিও, অডিও কনটেন্ট কপিরাইট আইনে পূর্বানুমতি ছাড়া ব্যবহার করা যাবে না।


মন্তব্য করুন

আপনার ই-মেইল ঠিকানা প্রকাশ করা হবে না। আবশ্যিক *

*


− 5 = 3

আপনি চাইলে এই এইচটিএমএল ট্যাগগুলোও ব্যবহার করতে পারেন: <a href="" title=""> <abbr title=""> <acronym title=""> <b> <blockquote cite=""> <cite> <code> <del datetime=""> <em> <i> <q cite=""> <strike> <strong>