পরিবেশ ও জীববৈচিত্র্য

বৃহস্পতিবার | ২৩ নভেম্বর, ২০১৭ | ৯ অগ্রহায়ণ, ১৪২৪ | ৩ রবিউল-আউয়াল, ১৪৩৯

প্রচ্ছদ » খবর » পরিবেশ ও জীববৈচিত্র্য » নবাবগঞ্জ শালবন জাতীয় উদ্যান ঘোষনা হলেও বরাদ্দ নেই

নবাবগঞ্জ শালবন জাতীয় উদ্যান ঘোষনা হলেও বরাদ্দ নেই

নবাবগঞ্জ শালবন জাতীয় উদ্যান ঘোষনা হলেও বরাদ্দ নেই

ঘোষণার তিন বছর পরও পূর্ণতা পায়নি শালবন সমৃদ্ধ দিনাজপুরের ‘নবাবগঞ্জ জাতীয় উদ্যান’। ঘোষণার তিন বছর পার হয়ে গেলেও এ উদ্যানের জন্য একটি টাকাও বরাদ্দ দেওয়া হয়নি।nobabganj_shalbon_BCCNews24-(3)

সরেজমিনে গিয়ে দেখা গেছে, এই তিন বছরে এই জাতীয় উদ্যানে দুটি ইটের তৈরী বসার বেঞ্চ, নবাবগঞ্জ বিট কার্যালয়ের সামনে কিছু শোভা বর্ধনকারী গাছ ও বনের ভিতরে বিপন্ন প্রজাতির গাছের বাগান তৈরী করা ছাড়া আর কোন কাজই করা হয়নি।

 

চরকাই রেঞ্জ কর্মকর্তা মোঃ সাইফুল ইসলাম তালুকদার বিসিসি নিউজ টুয়েন্টিফোর ডটকমকে জানান, একটি পুর্নঙ্গ জাতীয় উদ্যানে হরিণ প্রজনন কেন্দ্র, নেচার হিষ্ট্রি যাদুঘর নির্মাণ, সীমানা প্রাচীর, বিশ্রামাগার, পাবলিক টয়লেট, ঔষধি, শোভাবর্ধনকারী বাগান তৈরীসহ প্রায় শাতাধিক কার্যাক্রম পরিচালনার সরঞ্জাম ও লোকবল থাকার কথা রয়েছে।

nobabganj_shalbon_BCCNews24-(2)

 

সংরক্ষিত বনাঞ্চলটি পুরোটাই শালগাছে পরিবেষ্টিত। এছাড়াও সেগুন, গামার, কড়ই, জামসহ প্রায় ২০ থেকে ৩০ প্রজাতির গাছ-গাছড়া রয়েছে। বনের মধ্যে বনবিড়াল, বিভিন্ন ধরনের সাপ, শিয়াল, বেজি, কাঠবিড়ালসহ বিভিন্ন প্রজাতির বন্যপ্রাণী ও পাখির দেখা মেলে। এই বনের পার্শ্বেই রয়েছে প্রায় ১৪’শ হেক্টর আয়তনের ঐতিহাসিক আশুড়ার বিল। কিন্তু অজ্ঞাত কারনে এই আশুড়ার বিলটি জাতীয় উদ্যানের অন্তর্ভুক্ত করা হয়নি। এটি অর্ন্তভূক্ত করা হলে জাতীয় উদ্যানের গুরুত্ব আরোও বৃদ্ধি পেত বলে তিনি জানান।

nobabganj_shalbon_BCCNews24-(1)

নবাবগঞ্জ উপজেলা চেয়ারম্যান শিবলী সাদিক জানান, এই জাতীয় উদ্যানের বনাঞ্চলের সঙ্গে রয়েছে ঐতিহাসিক সীতার বনবাসের স্থান, সীতারকোট, মুনিরথান। প্রতিবছর দেশ বিদেশ থেকে হাজার দর্শনার্থী এসব জায়গায় ভ্রমণে আসেন। কিন্তু যথাযথ সংরক্ষণের অভাবে এসব ঐতিহাসিক স্থান ধ্বংস হতে চলেছে। কিন্তু অজ্ঞাত কারনে এসব ঐতিহাসিক স্থানকে জাতীয় উদ্যানের অন্তর্ভুক্ত করা হয়নি। এসব ঐতিহাসিক স্থানকে জাতীয় উদ্যানের অন্তর্ভূক্ত করে পূর্ণাঙ্গভাবে চালু হলে এ এলাকার হাজার হাজার লোকের কর্মসংস্থান হবে। সরকার বিপুল পরিমাণ রাজস্ব পাবে। তিনি বলেন, জাতীয় উদ্যান ঘোষনার পরে ২ কোটি টাকার একটি বাজেট এসেছিলো। কিন্তু আজ পর্যন্ত সেই টাকার কোন কাজ হয়নি বলে তিনি জানান।

দিনাজপুর-৬ আসনের এমপি আজিজুল হক চৌধুরী জানান, তিনি সাংসদ নির্বাচিত হওয়ার পর ঐতিহাসিক বিভিন্ন স্থান সমৃদ্ধ অবহেলিত বাংলাদেশের অন্যতম বড় নবাবগঞ্জ শালবনকে জাতীয় উদ্যানে করার উদ্যোগ নেন। ঘোষণার পর জাতীয় উদ্যানটি পুর্নাঙ্গ ভাবে দ্রুত চালু করার জন্য চেষ্টা চালিয়ে যাচ্ছেন। নবাবগঞ্জ জাতীয় উদ্যানের জন্য একটি বড় ধরনের বাজেট আসার কথা তিনি জানান

 

বিসিসি নিউজ টুয়েন্টিফোর ডটকম এ প্রকাশিত/প্রচারিত কোনো সংবাদ, তথ্য, ছবি, ভিডিও, অডিও কনটেন্ট কপিরাইট আইনে পূর্বানুমতি ছাড়া ব্যবহার করা যাবে না।

মন্তব্য করুন