জাতীয়

বৃহস্পতিবার | ২৩ নভেম্বর, ২০১৭ | ৯ অগ্রহায়ণ, ১৪২৪ | ৩ রবিউল-আউয়াল, ১৪৩৯

প্রচ্ছদ » খবর » জাতীয় » ৬ দফা দাবী আদায়ে মিছিল করেছে হিলি স্থলবন্দর ব্যবসায়ীরা

৬ দফা দাবী আদায়ে মিছিল করেছে হিলি স্থলবন্দর ব্যবসায়ীরা

৬ দফা দাবী আদায়ে মিছিল করেছে হিলি স্থলবন্দর ব্যবসায়ীরা

দিনাজপুরের হিলি স্থলবন্দর থেকে আমদানীকৃত পণ্য ঢাকাসহ দেশের বিভিন্ন স্থানে পাঠানোর সময় বিজিবি’র হাতে আটক, হয়রানী ও নির্যাতনের প্রতিবাদে অর্নিদিষ্টকালের জন্য আমদানী-রপ্তানী বন্ধ করে দিয়েছে স্থানীয় ব্যবসায়ীরা। ৬ দফা দাবী আদায়ে হিলিতে ব্যবসায়ীদের মিছিল ও উপজেলা নিবার্হী অফিসারের নিকট লিখিত অভিযোগ দায়ের করেছে।

আমদানীর বৈধ কাগজপত্র না দেখে মালামাল আটক করে কাষ্টমসে জমা দিয়ে হয়রানীমূলক মিথ্যা মামলা করে বিজিবি। এরই প্রতিবাদে আজ বেলা ১২ টায় স্থানীয় সিএন্ডএফ এজেন্ট, ট্রাক মালিক গ্রুপ, ট্রাক বন্দোবস্তকারী শ্রমিক, কুলি শ্রমিক সংগঠন, আমদানী-রপ্তানী কারকসহ সংশ্লিষ্টরা একটি মিছিল হিলি স্থলবন্দর প্রদক্ষিণ শেষে উপজেলা নির্বাহী অফিসারের কাছে একটি স্বারক লিপি প্রদান করেছে।

ব্যবসায়ীদের অভিযোগ, গত বৃহস্পতিবার মোটর সাইকেলের খুচরা যন্ত্রাংশ হিলি থেকে ঢাকা পাঠানোর সময় পাঁচবিবি চেকপোষ্টে বিজিবি আটক করে হিলি কাষ্টমসে জমা দিয়ে মিথ্যা মামলা দায়ের করে। ওই মালামাল ছাড় করে নেওয়ার জন্য ব্যবসায়ীরা বারংবার বিজিবির সাথে যোগায়োগ করে। এরপর বৈধ কাগজপত্র দেখার পর মালামাল ছাড়া হয়নি। রোববার বাংলাহিলি কাষ্টমস সিএন্ডএফ এজেন্টস এসোসিয়েশন ও বিজিবি কর্মকর্তারা পৃথক পৃথক বৈঠক করলেও ওই বৈঠকে আমদানীকারক শাহিনুর ইসলাম শাহিন তার আটককৃত মালামাল কাগজমতে বুঝিয়ে দেন বিজিবিকে। এরপর সিদ্ধান্তহীন ভাবে বৈঠক শেষ হয়।

ব্যাবসায়ীদের হয়রানী করার প্রতিবাদে রোববার দুপুরে তারা আমদানী বন্ধ করে দেন। রবিবার রাতে যৌথ সভায় ব্যবসায়ীদের সাথে একাত্বতা ঘোষনা করেন ট্রাক মালিক সমিতি, সিএন্ডএফ এজেন্ট, কুলি শ্রমিক, ট্রাক বন্দোবস্তকারী শ্রমিক।

এদিকে হিলি স্থলবন্দরের জটিলতা নিরসনে আজ দুপুর দেড়টায় হাকিমপুর উপজেলা নির্বাহী অফিসারের কার্যালয়ে বিজিবি, সিএন্ডএফ এজেন্ট, আমদানী-রপ্তানী কারক, কাষ্টমস কর্মকর্তাগন বৈঠকে বসেন। বৈঠকে আমদানী কারকরা তাদের ৬ দফা দাবী যথাক্রমে ট্রাস্কফোর্স গঠনের মাধ্যমে পণ্য আটক, ব্যবসায়ীদের আত্মপক্ষ সমর্থনের সুযোগ দেয়া, আটকের পর বৈধ কাগজপত্র ছিড়ে না ফেলা, ট্রাক চালকদের ওপর নির্যাতন বন্ধ, আমদানী কারকদের নামে বিগত হয়রানীমূলক মিথ্যা মামলা প্রত্যাহার ও আটককৃত মোটর সাইকেল যন্ত্রাংশ ও পরিবহন বিনা শর্তে ছেড়ে দেয়ার দাবী লিখিত ভাবে জানানো হয়।

হিলি কাষ্টমস সুত্রে জানাগেছে, রবিবার দুপুর থেকে বন্দরের আমদানী – রফতানী কার্যক্রম বন্ধ থাকায় সরকার প্রায় ২ কোটি টাকার রাজস্ব আয় থেকে বঞ্চিত হয়েছে। এ মাসেই ৭ দিন হরতালসহ ব্যবসায়ীদের আমদানী- রফতানী বন্ধের ডাক দেওয়ায় তাদের রাজস্ব আয়ের লক্ষ্য পুরণ করা খুবই দুষ্কর হয়ে পড়বে।

 

বিসিসি নিউজ টুয়েন্টিফোর ডটকম এ প্রকাশিত/প্রচারিত কোনো সংবাদ, তথ্য, ছবি, ভিডিও, অডিও কনটেন্ট কপিরাইট আইনে পূর্বানুমতি ছাড়া ব্যবহার করা যাবে না।

মন্তব্য করুন