Azizul Bashar
স্বাস্থ্যকর জীবন যাপন

শুক্রবার | ১৭ আগস্ট, ২০১৮ | ২ ভাদ্র, ১৪২৫ | ৫ জিলহজ্জ, ১৪৩৯

কড়া রোদে বেরোতে নেই

কড়া রোদে বেরোতে নেই

এক ঘণ্টার মধ্যে পরপর চার জন এল চর্মরোগ চিকিৎসকের চেম্বারে। সকলেই স্কুলপড়ুয়া। সকলেরই এক সমস্যা। মুখ, গলা বা হাতে সাদা দাগ। পরীক্ষা করে জানা গেল, একই সমস্যায় ভুগছে সবাই। ডাক্তারি পরিভাষায় যার নাম পলিমরফিক লাইট ইরাপশন বা পিএলই। রোগের উৎস রোদ। যে কোনও বয়সেই এই সমস্যা হতে পারে। সকাল ১০টা থেকে বিকেল তিনটের মধ্যে বাইরে বেরোলে যে রোদ লাগে, তা থেকে রোগের উৎপত্তি। চিকিৎসা না করালে ত্বকের অকাল বার্ধক্যেরও ভয় রয়েছে বলে হুঁশিয়ারি চিকিৎসকদের।

কিন্তু অনেকেরই বক্তব্য, মাঠেঘাটে খেলে তারা বড় হয়েছেন। শুনে এসেছেন, সূর্যের আলো গায়ে না লাগাটাই স্বাস্থ্যের পক্ষে বিপজ্জনক হয়ে উঠতে পারে। ফলে শীতাতপ নিয়ন্ত্রিত ঘর বা গাড়ির আরাম ছেড়ে অনেকেই দিনের খানিকটা সময় বাধ্য হয়ে রোদে হাঁটাহাঁটি করছেন সুস্থ থাকার তাগিদে। কিন্তু চর্মরোগ চিকিৎসকদের বক্তব্য, ওজন স্তর ফুটো হয়ে যাওয়ায় সূর্যের আলো আর নিরাপদ নয়। অতি বেগুনি রশ্মি ত্বকে লেগে ঘটছে নানা বিপত্তি।

ভিটামিন ডি-র অন্যতম উৎস সূর্যের আলো। বিশেষজ্ঞদের মতে, শরীরে তা না লাগালে শারীরিক ও মানসিক ক্লান্তি বাড়ে। হার্টের সমস্যা, কিডনির অসুখ, এমনকী স্ট্রোকও হতে পারে। স্তন, কোলন, জরায়ু, প্রস্টেট, ফুসফুসের ক্যানসারের পিছনেও ভিটামিন ডি-র ঘাটতি অন্যতম কারণ।

তা হলে উপায়? “রোদ থেকে বাঁচার যতটা সম্ভব চেষ্টা করতে হবে। ছাতা, সানগ্লাস, সানস্ক্রিন ক্রিম ব্যবহার জরুরি। তাতেও না হলে ডাক্তারের পরামর্শ নিতে হবে। স্কুলগুলিরও উচিত খেলার পিরিয়ড শেষের দিকে রাখা। রোদটা তখন কড়া থাকে না।” “কারও যদি রোদে সমস্যা হয়, সে ক্ষেত্রে খাদ্যতালিকায় ডিম, দুধ, ফল, সামুদ্রিক মাছ ইত্যাদি নিয়মিত রাখতে হবে। কারণ সেগুলি ভিটামিন ডি-র উৎস। কিন্তু এটা ভুললে চলবে না, ভিটামিন ডি-র ঘাটতি মড়কের আকার নিয়েছে। সূর্যের আলো তাই শরীরের পক্ষে খুবই উপকারী।”

 

বিসিসি নিউজ টুয়েন্টিফোর ডটকম এ প্রকাশিত/প্রচারিত কোনো সংবাদ, তথ্য, ছবি, ভিডিও, অডিও কনটেন্ট কপিরাইট আইনে পূর্বানুমতি ছাড়া ব্যবহার করা যাবে না।


মন্তব্য করুন