Azizul Bashar
বিদেশি সাহিত্য

শুক্রবার | ১৭ আগস্ট, ২০১৮ | ২ ভাদ্র, ১৪২৫ | ৫ জিলহজ্জ, ১৪৩৯

প্রচ্ছদ » সাহিত্য জগৎ » বিদেশি সাহিত্য » উইলিয়াম শেকসপিয়ারের কবিতা এবং এর সংক্ষিপ্ত আলোচনা

উইলিয়াম শেকসপিয়ারের কবিতা এবং এর সংক্ষিপ্ত আলোচনা

উইলিয়াম শেকসপিয়ারের কবিতা এবং এর সংক্ষিপ্ত আলোচনা

শ্যাল আই কমপেয়ার…

আমি কি তুলনা করব তোমার সাথে গ্রীষ্মকালীন দিনের?

তোমার রূপের মাধুরী ও কোমলতা তাকেও ছাড়ায়;

মে দিনের ঝড়ো হাওয়া নাচায় প্রিয়তমা কুঁড়িদের,

স্বল্প সময়ে ফুরিয়ে যায় গ্রীষ্মের মাধুরিমা;

কখনো উষ্ণ আকাশ রক্তিম চোখে তাকায়

প্রায়ই চোখে পড়ে সোনারঙ তার মিশেছে পান্ডুরতায়;

সব সুন্দরই রূপ মায়া তার একদা হারায়

দৈবের বশে প্রকৃতিলীলায় ক্রমে ম্লান হয়ে যায়

তবু অনাদি গ্রীষ্ম ধারণকরে কখনো বিবর্ণ হবে না তুমি,

তোমার এ রূপ তোমাকে জড়িয়ে থাকবে চিরকাল।

মৃত্যুও দাম্ভিকতায় বলবে না তার ছায়াবেষ্টিত তুমি,

যত দিন যাবে তত তুমি কবিতায় ভাস্বর

যতদিন মানব নেবে শ্বাস দেখবে দু চোখ ভরে,

তোমার আয়ুর আশ্বাসে এ কবিতা পাবে দীর্ঘ জীবন।

 

কবিতার সংক্ষিপ্ত আলোচনাঃ

১৫৯৫ থেকে ১৫৯৯ সালের মাঝে উইলিয়াম শেকসপিয়ার রচিত ১৫৪টি সনেটের মধ্যে “শ্যাল আই কমপেয়ার দ্যা টু এ সামারস্ ডে” সনেটটি ১৮ নম্বরের। ধারনা করা হয়, ১৫৪টি সনেটের মধ্য থেকে ১২৬টি সনেট সুন্দর এক যুবা পুরুষের উদ্দেশ্যে রচিত হয়। এই সুন্দর যুবার মাঝে ছিল বেশ কিছুটা রমনীসুলভ কোমলতা। এটি আসলেই কোনো যুবকের সৌন্দর্য গাথা কি না এ বিষয়ে সমালোচকগণ এখনো সন্দিহান।

কবি এখানে তার প্রেমাস্পদের সৌন্দর্য গ্রীষ্মকালের সৌন্দর্যের সাথে তুলনা করতে গিয়ে বলেছেন, গ্রীষ্মের সৌন্দর্য তো আসলে স্বল্পস্থায়ী, তাঁর প্রেমাস্পদের সৌন্দর্যের সাথে এর তুলনা করা হয়ত যায় না, এমন দ্বিধাযুক্ত বাক্য প্রয়োগ করেছিলেন তিনি। কবি বলেছেন, এর চেয়ে  আরো মোহনীয় তাঁর প্রেমাস্পদের রূপসুষমা। কারণ গ্রীষ্মের ঝড়ো হাওয়া সুন্দর ফুলের কুঁড়িদের বিনাশ করে। এর সূর্যলোকের বড়ো কড়া আর সৌন্দর্য বেশি দিন স্থায়ী হয় না। মোট কথা, সবকিছুই একসময় না একসময় তার সৌন্দর্য হারায়। প্রকৃতির নিয়মেই পরিবর্তন ঘটে সৌন্দর্যের, কিন্তু কবি বলেছেন, “তোমার রূপের ছটা ম্লান হবে না কখনো, তুমি যে স্থানে অবস্থান করছ তোমার রূপ নিয়ে তুমি সেখানেই থাকবে, অবস্থার পরিবর্তন হবে না তোমার। মৃত্যু এসেও কেড়ে নিতে কিংবা ম্লান করে দিতে পারবে না তোমার সৌন্দর্য, যা আমি আমার সনেটের মাঝে ফুটিয়ে তুলেছি। যতদিন মানুষ পৃথিবীতে অবস্থান করবে, যতদিন থাকবে তার দেখার চোখ, ততদিন সে আস্বাদন করবে এই সনেটের সৌন্দর্য গাথা। আর এই সনেট তোমাকে দেবে অমরত্বের মহিমা। অকৃত্রিম আবেগে পরিপূর্ণ এই সনেটের বাণী। কবির অকৃত্রিমতা সম্পর্কে কোনোই সন্দেহ থাকে না আমাদের সনেটটি পাঠ করার পর। অকৃত্রিম আবেগের ঝরনাধারায় স্নাত এই সনেট। ক্ষণস্থায়ী সৌন্দর্যকে স্থায়ী রূপদানের প্রচেষ্টা অপরূপ মহিমায় মহিমান্বিত হয়ে উঠেছে এই সনেটে।

 

বিসিসি নিউজ টুয়েন্টিফোর ডটকম এ প্রকাশিত/প্রচারিত কোনো সংবাদ, তথ্য, ছবি, ভিডিও, অডিও কনটেন্ট কপিরাইট আইনে পূর্বানুমতি ছাড়া ব্যবহার করা যাবে না।


মন্তব্য করুন