শিশুদের পাতা

সোমবার | ১৮ ডিসেম্বর, ২০১৭ | ৪ পৌষ, ১৪২৪ | ২৯ রবিউল-আউয়াল, ১৪৩৯

প্রচ্ছদ » জীবন যাপন » শিশুদের পাতা » নানা সংকটে নওগাঁ সরকারী শিশু পরিবারে ১শ শিশুর জীবন মান ব্যহত হচ্ছে

নানা সংকটে নওগাঁ সরকারী শিশু পরিবারে ১শ শিশুর জীবন মান ব্যহত হচ্ছে

নানা সংকটে নওগাঁ সরকারী  শিশু পরিবারে ১শ শিশুর জীবন মান ব্যহত হচ্ছে

আহাদ  আলী, নওগাঁ: নওগাঁ সরকারী শিশু পরিবারে জনবল সংকট সহ ভবনের নাজুক অবস্থায় ১শ শিশুর স্বাভাবিক জীবন যাত্রা ব্যহত হচ্ছে। শিশু পরিবারে ১৯টি পদের মধ্যে অফিস প্রধান সহ ১০টি পদ ফাঁকা গত ৩বছর থেকে। জনবল সংকটে এখানে শিশুরা নিবির চর্চা থেকে বঞ্চিত হচ্ছে। এ ছাড়া ভবনে বেশ কিছু স্থানে ভুমি কম্পে ফাটল সহ প্রধান শেডের টিন নষ্ট হওয়ায় চরম দুর্ভোগ পোহাচ্ছে শিশুরা। উর্ধ্বতন দফতরে এসব সমাধানে বারবার জানিয়ে কোন কাজ হচ্ছে না বলে অভিযোগ কর্মকর্তাদের।

নওগাঁ সরকারী  শিশু পরিবারে রয়েছে ৩বছর থেকে ১৮বছর পর্যন্ত ১শ জন শিশু বালিকা । এখানে মোট ১৯টি পদ রয়েছে এসব শিশুর দেখভাল করার জন্য। কিন্ত গত ৩ বছর থেকে অফিস প্রধান সহ ১০টি পদই ফাঁকা । জনবল সংকটে এসব শিশুদের সঠিক পরিচর্যা ব্যহত হচ্ছে। শিশুরা পড়ালেখা সহ ক্রীড়ায় ক্ষেত্রে  ভাল অবদান রাখলেও বর্তমানে প্রশিক্ষকের অভাবে নিয়মিত শরীর চর্চা ও সেলাই কার্যক্রম থেকে বঞ্চিত হচ্ছে। শিশুদের মধ্যে ৮ম শ্রেনীতে পড়–য়া লিজা আকতার লিমা, ১০ম শ্রেনীর রোকেয়া এবং অনার্স এ পড়ছে তানজিলা আক্তার জানান, প্রশিক্ষক শুন্যতায় অনেক শিক্ষা থেকে বঞ্চিত হতে হচ্ছে। বিশেষ করে ট্রেলারিং কাজের জন্য সেলাই এর একজন প্রশিক্ষক গত প্রায় ৭মাস থেকে এখানে নেই। এর ফলে সেলাই কাজ অনেকেই আর শিখতে পারছে না। অন্যদিকে ৫তলা বিশিষ্ট শিশু পরিবারের মুল ভবন টি কিছুদিন আগে ভুমিকম্পে বড় ফাটল দেখা দেয়। এসব ফাটল সিমেন্ট দিয়ে কোন রকমে সংস্কার করা হলেও ভবনের সামনের টিনশেড পুরোপুরি ব্যবহার অনুপযোগী হয়ে পড়েছে। এতে নিরাপত্তা ঝুঁকি নিয়ে সব কার্যক্রম চালানো হচ্ছে।

শিশু পরিবারে মোট ১৯টি পদের মধ্যে অফিস প্রধান ও ৩জন শিক্ষক সহ  ১০টি পদ ফাঁকা রয়েছে। এর মধ্যে উপতত্বাবধায়ক ১জন ৩জন প্রশিক্ষকের পদ পুরো ফাঁকা। একজন খন্ডকালীন চিকিৎসকের পদ এখানে থাকলেও গত প্রায় ৩বছর থেকে পদটি ফাঁকা । এর ফলে শিশুদের নানা অসুস্থতা ও ছোট খাট অসুখ এখন বাইরে নিয়ে গিয়ে চিকিৎসা করাতে হচ্ছে । এখানে খালাম্মা নামের ৩ জনের এর মধ্যে রয়েছে দু’জন।  মাজেদা ও রেহেনা খাতুন নামের এ দু’খালাম্মা জানালেন জনবল সংকটে এখন তাদের উপর বাড়তি কাজের চাপ পড়েছে। এসব শিশুদের জন্য মাসে ২৬শ টাকা বরাদ্ধ রয়েছে সরকারী ভাবে। এর মধ্যে পোশাক পরিচ্ছদ  চিকিৎসার এবং বছরের বিশেষ দিনের ভাল খাবারের  জন্য ৬শ টাকা কেটে রাখা হয়। মাত্র ২ হাজার টাকায় একজন শিশুর  ভাল মানের খাবার নিশ্চিত করা সম্ভব হয় না বলে জানালেন এখানকার সহকারী শিক্ষক শহিদুল ইসলাম।

জনবল সংকট সহ নাজুক এসব ভবন সংস্কারের জন্য সংশ্লিষ্ট দফতরে একাধিকবার জানানো হলেও কোন কাজ হচ্ছে না বলে জানান,  নওগাঁ সমাজ সেবা অধিদপÍর সহকারী পরিচালক মো: আবু সাঈদ মো: কাওসার রহমান। তিনি জানান, বর্তমানে বেশ বেগ পোহাতে হচ্ছে এসব সমস্যা মোকাবিলা করতে। নওগাঁ শিশু পরিবারের এসব শিশুদের সুযোগ নিশ্চিত করার দাবী জেলা বাসীর।

 

বিসিসি নিউজ টুয়েন্টিফোর ডটকম এ প্রকাশিত/প্রচারিত কোনো সংবাদ, তথ্য, ছবি, ভিডিও, অডিও কনটেন্ট কপিরাইট আইনে পূর্বানুমতি ছাড়া ব্যবহার করা যাবে না।

মন্তব্য করুন