21 Feb 2018
প্রধান খবর

রবিবার | ১৮ ফেব্রুয়ারি, ২০১৮ | ৬ ফাল্গুন, ১৪২৪ | ১ জমাদিউস-সানি, ১৪৩৯

প্রচ্ছদ » প্রধান খবর » প্রত্যেক পুলিশ সদস্যকে জবাবদিহিতা নিশ্চিত করতে হবে : প্রধানমন্ত্রী

প্রত্যেক পুলিশ সদস্যকে জবাবদিহিতা নিশ্চিত করতে হবে : প্রধানমন্ত্রী

প্রত্যেক পুলিশ সদস্যকে জবাবদিহিতা নিশ্চিত করতে হবে : প্রধানমন্ত্রী

কৃতিত্বের জন্য পুরস্কারের পাশাপাশি কাজের জন্য প্রত্যেক পুলিশ সদস্যকে জবাবদিহিতা নিশ্চিত করতে হবে। আজ সোমবার সকালে রাজারবাগ পুলিশ লাইনে পুলিশ সপ্তাহ-২০১৮ এ বক্তব্য কালে প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা এসব কথা বলেন।

প্রধানমন্ত্রী বলেন, বিএনপি-জামায়াতের আগুন সন্ত্রাস ও ধ্বংসযজ্ঞ সাহসিকতার সঙ্গে মোকাবেলা করেছে পুলিশ বাহিনী। গণতন্ত্রের ধারাবাহিকতা রক্ষা এবং সুশাসন প্রতিষ্ঠায় পুলিশের আন্তরিকতা, কর্মদক্ষতা, পেশাদারিত্ব দেশবাসীর কাছে প্রশংসিত হচ্ছে। দেশবাসীর আস্থা অর্জনেও পুলিশ যথেষ্ট সক্রিয় রয়েছে।

প্রধানমন্ত্রী বলেন, ২০১৩ সালের ফেব্রুয়ারি মাস থেকে মুক্তিযুদ্ধের চেতনা বিরোধী, বিএনপি-জামায়াত ও তাদের সহচররা হরতাল ও অবরোধের নামে যে নৈরাজ্য, ধ্বংসাত্মক, নাশকতামূলক কার্যক্রমে লিপ্ত হয়েছিলো, আমরা দেখেছি সেই ধ্বংসযগ্যের রূপ। তাদের জ্বালাও পোড়াও, নিরিহ মানুষকে পুড়িয়ে হত্যা, রাষ্ট্রীয় সম্পদ ধ্বংস করা এবং আইনশৃংখলা রক্ষাকারী সংস্থার উপর হামলা আমরা দেখেছি। আমি মনে করি, আমাদের পুলিশ বাহিনী অত্যন্ত সাহসিকতার সঙ্গে সে অবস্থার মোকাবেলা করেছিলেন।

তিনি বলেন, বিশেষ করে এই হামলা মোকাবেলা করতে গিয়ে ২০১৩, ২০১৪ ও ২০১৫ সালে আমাদের পুলিশ বাহিনীর প্রায় ২৭ জন সদস্য প্রাণ দিয়েছেন। আমি তাদের প্রতিও শ্রদ্ধা জানাচ্ছি। সন্ত্রাস ও জঙ্গিবাদ নির্মূলে পুলিশ বিশেষ ভূমিকা রেখেছে। প্রতিরোধের মাধ্যমে জঙ্গিবাদ নির্মূল করতে হবে। রোহিঙ্গাদের আশ্রয় দিতে পুলিশ ভূমিকা রেখেছে।

প্রধানমন্ত্রী আরও বলেন, পুলিশের উন্নয়ন ও অগ্রগতিকে সরকার গুরুত্ব দেয়। পুলিশের সক্ষমতা বাড়াতে বর্তমান সরকার কাজ করছে। পুলিশকে আধুনিক প্রযুক্তি ব্যবহার করতে হবে।

এসময় প্রধানমন্ত্রী পুলিশ সপ্তাহ-২০১৮ এর আনুষ্ঠানিক উদ্বোধন করেন। এর আগে প্রধানমন্ত্রী সারাদেশের বিভিন্ন পুলিশ ইউনিটের সদস্যদের সমন্বয়ে গঠিত ১১টি কন্টিনজেন্ট এবং পতাকাবাহীদলের নয়নাভিরাম প্যারেড পরিদর্শন ও অভিবাদন গ্রহণ করেন।

২০১৭ সালে পুলিশ বাহিনীর সদস্যগণের অসীম সাহসিকতা ও বীরত্বপূর্ণ কাজের স্বীকৃতি স্বরূপ ১৮২ জনকে পদক দেন প্রধানমন্ত্রী।

এরমধ্যে ৩০ জন পুলিশ সদস্যকে বাংলাদেশ পুলিশ পদক (বিপিএম), ৭১ জনকে রাষ্ট্রপতির পুলিশ পদক (পিপিএম) এবং গুরুত্বপূর্ণ মামলার রহস্য উদঘাটন, অপরাধ নিয়ন্ত্রণ, দক্ষতা, কর্তব্যনিষ্ঠা, সততা ও শৃঙ্খলামূলক আচরণের মাধ্যমে প্রশংসনীয় অবদানের জন্য ২৮ জন পুলিশ সদস্যকে বাংলাদেশ পুলিশ পদক (বিপিএম)-সেবা এবং ৫৩ জনকে রাষ্ট্রপতির পুলিশ পদক (পিপিএম)-সেবা প্রদান করেন।

 

বিসিসি নিউজ টুয়েন্টিফোর ডটকম এ প্রকাশিত/প্রচারিত কোনো সংবাদ, তথ্য, ছবি, ভিডিও, অডিও কনটেন্ট কপিরাইট আইনে পূর্বানুমতি ছাড়া ব্যবহার করা যাবে না।

মন্তব্য করুন