Azizul Bashar
প্রধান খবর

শনিবার | ১৮ আগস্ট, ২০১৮ | ৩ ভাদ্র, ১৪২৫ | ৬ জিলহজ্জ, ১৪৩৯

প্রচ্ছদ » প্রধান খবর » বাংলাদেশের মহাকাশের স্বপ্নযাত্রায় অপেক্ষা বাড়লো একদিনের

বাংলাদেশের মহাকাশের স্বপ্নযাত্রায় অপেক্ষা বাড়লো একদিনের

বাংলাদেশের মহাকাশের স্বপ্নযাত্রায় অপেক্ষা বাড়লো একদিনের

স্যাটেলাইট উৎক্ষেপণকারী প্রতিষ্ঠান স্পেসএক্স তাদের ওয়েবসাইটে জানিয়েছে, প্রথম দফায় ওড়ানো যায়নি বঙ্গবন্ধু-১ স্যাটেলাইট। শেষ মুহূর্তে কারিগরি জটিলতায় উৎক্ষেপণ স্থগিত করা হয়েছে। ওড়ানের জন্য রাখা রিজার্ভ ডে আজ শুক্রবার একই সময়ে ‘বঙ্গবন্ধু-১’ আবারও উৎক্ষেপণের চেষ্টা করা হবে বলে জানিয়েছে প্রতিষ্ঠানটি।

প্রাথমিকভাবে বাংলাদেশ সময় বৃহস্পতিবার দিবাগত রাত ২টা ১৪ মিনিটে স্পেসএক্সের ফ্যালকন-৯ রকেটে করে বঙ্গবন্ধু-১ স্যাটেলাইটের মহাকাশে পাড়ি জমানোর কথা ছিল। পরে সেই সময় বাড়িয়ে ৩টা ৪৭ মিনিটে নির্ধারণ করা হয়। পরে সময় আরও ১৫ মিনিট বাড়িয়ে ৪টা ২ মিনিটে উৎক্ষেপণের কথা বলা হয়। সবশেষে ৪টা ৭ মিনিটে উৎক্ষেপণের স্থগিতের কথা জানায় স্পেসএক্স।

বঙ্গবন্ধু স্যাটেলাইট-১ উৎক্ষেপণ পিছিয়ে যাওয়ার পর ফ্লোরিডা থেকে বাংলাদেশ টেলিযোগাযোগ নিয়ন্ত্রণ কমিশন (বিটিআরসি) চেয়ারম্যান ড. শাহজাহান মাহমুদ বলেন, ‘শেষ মুহূর্তে এসে উৎক্ষেপনের সময় একদিন পিছিয়ে গেছে। পুরো প্রক্রিয়াটিই কম্পিউটারেই ঘটে থাকে। ওরা হঠাৎ মনে করে যে হয়তো কোথাও একটা সমস্যা হচ্ছে, তখন থামিয়ে দেয়। এটা স্বয়ংক্রিয়ভাবে হয়, এখানে মানুষের হাত নেই। কিন্তু ভালো খবর হচ্ছে স্যাটেলাইট বা রকেটে কোন সমস্যা নেই।’

ড. শাহজাহান মাহমুদ আরো বলেন, ‘মাঝেমধ্যে লাস্ট কাউন্টডাউনের পরেও থেমে যায়। লাস্ট কাউন্টডাউট ৭, ৮ ও ৯ ধাপে যাওয়ার পরও অনেক সময় থেমে যায়। তবে সবচেয়ে খুশির খবর এই যে, এখন পর্যন্ত সব কিছু ঠিকই আছে। নতুবা এতোটা পর্যন্ত যাওয়া যেত না।’

এদিকে বঙ্গবন্ধু স্যাটেলাইটের উৎক্ষেপন পিছিয়ে যাওয়ার পর পরেই  উৎক্ষেপনস্থল কেপ কেনেডিতে থাকা প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনার ছেলে ও তার তথ্যপ্রযুক্তিবিষয়ক উপদেষ্টা সজীব ওয়াজেদ জয় লিখেছেন, ‌স্যাটেলাইট উৎক্ষেপণের শেষ মুহূর্ত পুরোপুরি কম্পিউটারে নিয়ন্ত্রিত হয়। এসময় যদি স্যাটেলাইটের কোনো অংশ স্বাভাবিক নয় বলে কম্পিউটার খুঁজে পায়, তাহলে উৎক্ষেপণ বাতিল করা হয়।

সজীব ওয়াজেদ জয় আরো লিখেন, উৎক্ষেপণের মাত্র ৪২ সেকেন্ড আগে তা বাতিল করা হয়েছে। স্পেসএক্স সবকিছু যাচাই-বাছাই করবে এবং শুক্রবার একই সময়ে উৎক্ষেপণের প্রচেষ্টা আবারো শুরু হবে। ঝুঁকি নিতে না চাইলে এটা রকেট উৎক্ষেপণের সময় একেবারে স্বাভাবিক  ঘটনা।

নিজেদের ওয়েবসাইটে স্পেসএক্স জানিয়েছিল বঙ্গবন্ধু-১ স্যাটেলাইটের প্রোপিল্যান্ট লোডিং ভ্যারিফাই, আরপি-১ (রকেট জ্বালানি) লোডিং, প্রথম পর্যায়ের লিকুইড অক্সিজেন (এলওএক্স) লোডিং, দ্বিতীয় পর্যায়ের এলওএক্স লোডিং, লঞ্চ পূর্ববর্তী ফ্যালকন-৯ এর ইঞ্জিন শীতলীকরণ, চূড়ান্ত উৎক্ষেপণের আগে ফ্লাইট কম্পিউটার চেক, প্রপিল্যান্ট ট্যাংক প্রেশারাইজেশন সম্পন্ন হয়েছে।  স্পেসএক্সের লঞ্চ ডিরেক্টর উৎক্ষেপণের চূড়ান্ত ভেরিফিকেশন গিয়ে পিছিয়েছে উৎক্ষেপনের সময়। শেষে উৎক্ষেপণের কাউন্টডাউনের শেষপর্যায়ে গিয়ে একদিন পিছিয়ে যায় বঙ্গবন্ধু-১ এর যাত্রা।

 

বিসিসি নিউজ টুয়েন্টিফোর ডটকম এ প্রকাশিত/প্রচারিত কোনো সংবাদ, তথ্য, ছবি, ভিডিও, অডিও কনটেন্ট কপিরাইট আইনে পূর্বানুমতি ছাড়া ব্যবহার করা যাবে না।


মন্তব্য করুন