প্রধান খবর

মঙ্গলবার | ২৫ সেপ্টেম্বর, ২০১৮ | ১০ আশ্বিন, ১৪২৫ | ১৪ মহররম, ১৪৪০

প্রচ্ছদ » প্রধান খবর » ২১ আগস্ট গ্রেনেড হামলায় খালেদা-তারেক সরাসরি জড়িত : প্রধানমন্ত্রী

২১ আগস্ট গ্রেনেড হামলায় খালেদা-তারেক সরাসরি জড়িত : প্রধানমন্ত্রী

২১ আগস্ট গ্রেনেড হামলায় খালেদা-তারেক সরাসরি জড়িত : প্রধানমন্ত্রী

২১ আগস্ট গ্রেনেড হামলার ঘটনায় খালেদা জিয়া ও তারেক রহমান সরাসরি জড়িত বলে অভিযোগ করেছেন প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা।

আজ (মঙ্গলবার) সকালে রাজধানীর বঙ্গবন্ধু এভিনিউয়ে আওয়ামী লীগ কার্যালয়ে ২১ আগস্টে গ্রেনেড হামলার ঘটনায় নিহতদের প্রতি শ্রদ্ধা জানানো শেষে এমন অভিযোগ করেন প্রধানমন্ত্রী।

তিনি বলেন, সেদিনের এই ঘটনা (২১ আগস্টের গ্রেনেড হামলা) সরকারের (তৎকালীন বিএনপি-জামায়াত সরকার) নির্দেশেই হয়েছিল। ওই হামলার ঘটনায় খালেদা জিয়া ও তারেক রহমান সরাসরি জড়িত। বিচারকে বাধাগ্রস্ত করাসহ ঘটনাকে ভিন্ন খাতে নিতে বিএনপি মিথ্যাচার করেছিল। তাদের হত্যা-ষড়যন্ত্রের অভ্যাস বদলাবে না।

তিনি বলেন, ‘এই হামলায় (গ্রেনেড হামলা) জিয়া পরিবার জড়িত, এতে কোনো সন্দেহ নেই। সেদিন খালেদা জিয়া ও তারেক রহমানের নির্দেশে হামলাকারীরা যেন পালিয়ে যেতে পারে, সে ব্যবস্থা নেওয়া হয় এবং সব চিহ্ন মুছে দেওয়ার চেষ্টা হয়। তাদের পরিকল্পনা ছিল, আমাকে তো মারবেই মারবে, তারা আওয়ামী লীগকেও নিশ্চিহ্ন করে দেবে।’ গুজব ছড়িয়ে মিথ্যা বলতে বিএনপির মতো পারদর্শী আর কেউ নেই বলেও এসময় উল্লেখ করেন শেখ হাসিনা।

ওই হামলাতেই শ্রবণশক্তি নষ্ট হয়ে যায় প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনার। গ্রেনেড হামলার বিকট শব্দে তার দুই কানেই সমস্যা দেখা দেয়। চিকিৎসার মাধ্যমে তার একটি কানের শ্রবণশক্তি ফিরিয়ে আনা গেলেও অন্য কানের শ্রবণশক্তি ফেরেনি। চিকিৎসকরা বলছেন, ওই হামলার পর দলের নেতাকর্মীদের চিকিৎসা নিয়ে দুশ্চিন্তায় ছিলেন শেখ হাসিনা। নিজের শারীরিক সমস্যাকে তিনি গুরুত্ব দেননি। চিকিৎসকদের পরামর্শ অনুযায়ী ওই সময় শেখ হাসিনা সিঙ্গপুরে গিয়ে উন্নত চিকিৎসা নিলে হয়তো তার দুই কানেরই শ্রবণশক্তি ফিরত। কিন্তু দলের নেতাকর্মীদের রেখে তিনি উন্নত চিকিৎসা নিতে বিদেশে যাননি বলে জানিয়েছেন বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিব মেডিকেল বিশ্ববিদ্যালয়ের সাবেক উপাচার্য অধ্যাপক প্রাণ গোপাল দত্ত।

শেখ হাসিনা বলেন, বিএনপি-জামায়াতের রাজনীতির সঙ্গে যুক্তরা যেন দলে (আওয়ামী লীগে) না ভিড়তে পারে, সে বিষয়ে সবাইকে সজাগ থাকতে হবে।

এর আগে প্রধানমন্ত্রী ২১ আগস্টে গ্রেনেড হামলার ঘটনায় নিহতদের স্মরণে আওয়ামী লীগ কার্যালয়ে স্থাপিত অস্থায়ী বেদিতে ফুল দিয়ে শ্রদ্ধা জানান। সেখানে দাঁড়িয়ে এক মিনিট নীরবতা পালন করেন তিনি।

পরে সেদিনের নিহত ও আহতদের পরিবারের সদস্যদের সঙ্গে দেখা করে তাদের খোঁজ-খবর নেন আওয়ামী লীগ সভাপতি ও প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা। এ সময় দেশবাসীকে ঈদুল আজহার আগাম শুভেচ্ছা জানান প্রধানমন্ত্রী।

প্রধানমন্ত্রীর সঙ্গে মন্ত্রী পরিষদের সদস্য ও আওয়ামী লীগের কেন্দ্রীয় নেতারা উপস্থিত ছিলেন।

উল্লেখ্য, ২০০৪ সালের ২১ আগস্ট তৎকালীন বিরোধীদলীয় নেতা আওয়ামী লীগের সভাপতি ও বর্তমান প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনার ওপর গ্রেনেড হামলা হয়। এতে তিনি প্রাণে বেঁচে গেলেও আইভী রহমানসহ দলের ২৪ জন নিহত ও অসংখ্য নেতাকর্মী আহত হন।

 

বিসিসি নিউজ টুয়েন্টিফোর ডটকম এ প্রকাশিত/প্রচারিত কোনো সংবাদ, তথ্য, ছবি, ভিডিও, অডিও কনটেন্ট কপিরাইট আইনে পূর্বানুমতি ছাড়া ব্যবহার করা যাবে না।


মন্তব্য করুন